পড়াশোনা

১৪ ই নভেম্বর থেকে সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জারি হচ্ছে নতুন নিয়ম। মানতে হবে সকলকে

সমগ্র ভারতের বিভিন্ন প্রত্যন্ত অঞ্চলে বরাবরই মেয়েদের লিঙ্গ বৈষম্যের শিকার হতে হয়। নানা প্রকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও মেয়েদের বারংবার নানাভাবে কোণঠাসা করা হয়ে থাকে। এমনকী পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে ছাত্রীদের নির্যাতন পর্যন্ত করা হয়ে থাকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। তবে এহেন ঘটনাগুলি শুধুমাত্র ছাত্রীদের মধ্যেই সীমিত নেই, শিক্ষিকাদেরও নানাভাবে বারংবার এরূপ পরিস্থিতির শিকার হতে হয়েছে, এমনটাই অভিযোগ উঠে এসেছে ভারতের উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রে নীতি-নির্ধারক সংস্থা ইউনিভার্সিটি গ্রান্ট কমিশনের কাছে। যদিও এই অভিযোগ নতুন কিছু নয়, এর আগেও অনেকবার বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন বা UGC এর কাছে এরূপ অভিযোগ জমা পড়েছে। আর তাই এবারে শিক্ষার্থী এবং শিক্ষিকারা তথা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত নারীরা যাতে শিক্ষাক্ষেত্রে সুরক্ষিত থাকতে পারে তাই UGC এর তরফ থেকে কতোগুলি নতুন নিয়ম নির্ধারণ করা হয়েছে।

তবে শুধু নতুন নিয়ম নির্ধারণ করা হয়েছে এমন নয়। এর পাশাপাশি UGC -এর পক্ষ থেকে কতোগুলি নতুন গাইডলাইনও ঘোষণা করা হয়েছে। এই গাইডলাইন গুলিতে UGC এর তরফে শিক্ষাক্ষেত্রে হিংসামুক্ত পরিবেশ গঠন এবং নারীদের সুরক্ষা প্রদানের ক্ষেত্রে নিজেদের দায়বদ্ধতার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক UGC পক্ষ থেকে প্রকাশিত এই নতুন গাইডলাইন গুলিতে কি নির্দেশ দেওয়া হয়েছে?
ইতিমধ্যেই ভারতের সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলির অধ্যক্ষ এবং উপাচার্যদের হাতে এই গাইডলাইনগুলি পৌঁছে গিয়েছে। এই গাইডলাইনে UGC -এর তরফে উল্লেখ করা হয়েছে যে, আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনস্ত সমস্ত ছাত্র ছাত্রীদের ভর্তির প্রক্রিয়া চলাকালীন প্রত্যেককে একটি হ্যান্ডবুক দিতে হবে যেখানে যেকোনো পরিস্থিতিতে সাহায্যর ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সমস্ত প্রয়োজনীয় ফোন নম্বরগুলো লেখা থাকবে। এর মধ্যে স্থানীয় পুলিশ স্টেশনের ফোন নম্বরের পাশাপাশি কমপ্লেন কমিটির সদস্যদের নাম ও ফোন নম্বর উল্লেখ করতে হবে। এছাড়াও যেকোনো সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে যোগাযোগের জন্য হেল্পলাইন নম্বর, মেডিকেল এমার্জেন্সি নম্বর এমনকী ক্যান্টিন-রেজিস্টারের নম্বর পর্যন্ত উল্লেখ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

দার্জিলিঙে জারি করা হলো নতুন নিয়ম, নিয়ম ভাঙ্গলেই দিতে হবে ৫০০০ টাকা পর্যন্ত জরিমানা

তবে এখানেই শেষ নয়, UGC এর তরফে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যাতে প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্ত ক্যাম্পাসগুলি এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে থাকা সমস্ত কলেজগুলিকে সিসিটিভির আওতায় আনা হয়। শিক্ষা ক্ষেত্রে নারীদের সুরক্ষার বিষয়টি মাথায় রেখে সিসিটিভি ইন্সটল করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে UGC এর তরফে এমনটাই মনে করা হচ্ছে বিভিন্ন ক্ষেত্রে কর্মকর্তাদের তরফে। এবিষয়ে যাতে কোনোরকম গাফিলতির না হয় তার দিকেও নজর রাখতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকে। এছাড়াও এই গাইডলাইনের স্পষ্টতই উল্লেখ করা হয়েছে যে, যেকোনো উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ইন্টারনাল কমপ্লেন্ট কমিটি বা ICC থাকা বাধ্যতামূলক।

এমনকী বিশেষ পরিস্থিতিতে যদি কোন শিক্ষিকা কিংবা ছাত্রীর যদি কাউন্সেলিং এর প্রয়োজন হয় তবে তিনি যেন বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা কলেজের মারফত প্রয়োজনীয় কাউন্সিলিং পান তার দিকে নজর দিতেও বলা হয়েছে এই গাইডলাইনগুলিতে। এছাড়াও এই গাইডলাইনে মফঃস্বল এবং গ্রামাঞ্চলের কলেজগুলির ক্যাম্পাসকে আরও সুরক্ষিত করার পাশাপাশি সমস্ত ক্ষেত্রের কলেজের লেডিস টয়লেটের মান উন্নয়নের জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কলেজ ক্যাম্পাসগুলিকে সুরক্ষিত করার জন্য দেয়াল দিয়ে সম্পূর্ণ কলেজ ক্যাম্পাস ঘিরে ফেলার নির্দেশ দেয়া হয়েছে UGC এর তরফে।

এমনকী ছাত্রী এবং শিক্ষিকাদের সুবিধার্থে প্রত্যেকটি উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গার্লস হোস্টেল নির্মাণ করা নির্দেশ দেওয়া হয়েছে UGC -এর পক্ষ থেকে। এছাড়াও এই গাইডলাইন গুলিতে স্পষ্টভাবে জানানো হয়েছে যে, ছাত্রী কিংবা শিক্ষিকারা অস্বচ্ছন্দ বোধ করে এরূপ কোনো কাজ করা যাবে না। ইতিমধ্যেই এই গাইডলাইনগুলি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়গুলির কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানোর পাশাপাশি UGC -এর তরফে তাদের থেকে এ বিষয়ক মতামত জানতে চাওয়া হয়েছে এবং প্রত্যেকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে তাদের মতামত ১৪ই নভেম্বর অর্থাৎ সোমবারের মধ্যে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button