পড়াশোনা

পশ্চিমবঙ্গে স্কুলে গরমের জন্য ক্লাসের সময় বদল? শিক্ষা দপ্তরের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

দীর্ঘকালীন গ্রীষ্মের ছুটি (Summer Vacation 2024) শেষে খুলে গিয়েছে রাজ্যের প্রায় সমস্ত স্কুল (West Bengal School). তবে, সারা রাজ্য এখনও চলছে গ্রীষ্মের তীব্র দাবদাহ। এমতাবস্থায়, স্কুল শিক্ষা দপ্তরের (WB Education Department) তরফে পড়ুয়াদের সুবিধার্থে জারি করা হলো বিশেষ নোটিশ (Morning School). তীব্র গরমে (Heatwave) আর ক্লাস করতে হবে না পড়ুয়াদের, পরিবর্তিত হতে চলেছে ক্লাসের সময়।

Morning School Starting Advisory in West Bengal.

দক্ষিণবঙ্গে দেখা নেই বৃষ্টির। দহন জ্বালা আরও বাড়িয়ে চলতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার এবং শুক্রবারও রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চলের পাঁচ জেলায় তাপ প্রবাহের পূর্বাভাস দিল আবহাওয়া দফতর। পুরুলিয়া, পশ্চিম মেদিনীপুর এবং পশ্চিম বর্ধমানে তীব্র তাপ প্রবাহও হতে পারে। তাপ প্রবাহের সতর্কতা রয়েছে বাঁকুড়া ও ঝাড়গ্রামে। গাঙ্গেয় বঙ্গের একাধিক জেলায় আর্দ্র এবং উষ্ণ আবহাওয়া থাকতে পারে।

পশ্চিমবঙ্গে মর্নিং স্কুল শুরু?

বর্ষা কবে আসবে, তা নিয়ে কোনও নিশ্চিত পূর্বাভাসও দেয়নি হাওয়া অফিস। তারা জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার ঝড় বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায়। অপর দিকে সদ্যই গরমের ছুটি (Summer Holiday) শেষ হয়ে রাজ্যের সমস্ত স্কুলে পঠন পাঠন শুরু হয়েছে। কিন্তু তীব্র গরমের কারণে পড়ুয়ারের একাংশ স্কুল যেতে নারাজ। এই আবহে শিক্ষা দফতরের তরফে স্কুল পড়ুয়াদের সুবিধার্থে জারি করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তি।

শিক্ষা দপ্তরের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

সেই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, রাজ্যের সরকারি, সরকারি সাহায্য প্রাপ্ত এবং সরকার পোষিত স্কুল গুলো তাদের নিজস্ব এলাকার আবহাওয়া অনুযায়ী স্কুলের সময় পরিবর্তন (School Timing) করতে পারবে। এই নিয়ম শুধু চলতি জুন মাসের জন্যই প্রযোজ্য। তবে, সকাল বা মর্নিং স্কুল (Morning School) চালু করলেও পড়ুয়াদের মিড ডে মিল (Mid Day Meal) যেন বাদ না যায় সেই বিষয়টিও জানানো হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

পশ্চিমবঙ্গে স্কুলের সময় বদল!

অত্যধিক এই গরমে স্কুলের সময় পরিবর্তন করে সকালে স্কুল করতে চেয়ে বিভিন্ন স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবেদন করেছিলেন আগেই। তবে বেশ কিছু স্কুলে একই ভবনে সকালে প্রাথমিক স্কুল, বেলা বাড়লে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের ক্লাস চলে। সেখানে সমস্যা হবে বলে মনে করা হচ্ছে। শিয়ালদহের টাকি বয়েজ় স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা স্বাগতা বসাক বলেন, তাদের প্রাথমিকের স্কুল (Primary School) সকালে শুরু হয়ে সকাল ১০ টা ৪০ মিনিটে শেষ হয়।

প্রাথমিক শিক্ষক (Primary Teachers)

সকাল ১১ টায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের ক্লাস শুরু হয়। তাই তাদের পক্ষে স্কুলের সময় পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। অপর দিকে হিন্দু স্কুলের প্রধান শিক্ষক শুভ্রজিৎ দত্তের কথায়, তাদেরও সকালে প্রাথমিক স্কুল চলে। সময় পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। শুভ্রজিৎ জানান, কলকাতায় এমন কিছু স্কুল রয়েছে যেখানে একই ভবনে সকালে মেয়েদের স্কুল, দুপুরে ছেলেদের স্কুল চলে।

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারি কর্মীদের বর্ধিত হারে DA! নবান্নের তরফে সুখবর

সেখানেও সময় পরিবর্তন সম্ভব নয়। এবার রাজ্য শিক্ষা দপ্তরের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী কোন কোন স্কুল তাদের সময় পরিবর্তন করে মর্নিং স্কুল বা অন্য সময় স্কুল করে, সেটিই এখন দেখার বিষয়। এই সম্পর্কে আপনাদের মত নিচে কমেন্ট করে জানাবেন। সঙ্গে থাকুন এই ধরণের আরও খবরের আপডেট পাওয়ার জন্য।
Written by Sampriti Bose.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button