Learn-the-online-Pan-Card-apply-process-with-the-help-of-your-mobile-phone

বর্তমানে প্যান কার্ড একটি গুরুত্বপূর্ণ নথি হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। বহু সরকারি ও বেসরকারি কাজকর্ম, আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত বিভিন্ন কাজের জন্য প্যান কার্ড জরুরি হয়ে পড়েছে। ফলে স্বভাবতই অনেকেই নিজের প্যান কার্ড বানাতে উদ্যোগী হচ্ছেন। আর এই প্যান কার্ড বানানোর (Pan Card Apply) খুব সহজ একটি অনলাইন পদ্ধতি রয়েছে। বাড়িতে বসেই সহজে প্যান কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারেন। আজকের প্রতিবেদনে এই বিষয়েই বিস্তারিত আলোচনা করবো।

প্যান কার্ডের জন্য অনলাইন আবেদন পদ্ধতি :-

১. প্রথমে নিজের মোবাইলে নীচে দেওয়া লিংকে ক্লিক করে অনলাইন প্যান কার্ড বানানোর আবেদনের প্রথম পেজে চলে যাবেন।

২. এরপরে Application Type -এ New Pan- Indian Citizen (Form 49A) এই অপশনটি এবং Category -তে Individual সিলেক্ট করবেন।

৩. তারপরে নিজের নাম, জন্মতারিখ, মোবাইল নম্বর, ইমেল আইডি লিখে নীচের দেওয়া Terms -এ টিক দেবেন এবং ক্যাপচা কোডটি লিখে Submit অপশনে ক্লিক করবেন।

৪. তাহলে আপনার অনলাইন প্যান রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়ে যাবে এবং স্ক্রিনে একটি টোকেন নম্বর দেখাবে যেটি ভালোভাবে নোট করে নেবেন এবং নীচে দেওয়া Continue with Pan Application Form -এ ক্লিক করবেন।

৫. এরপরে কীভাবে প্যান কার্ডের আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট জমা করবেন তা সিলেক্ট করতে হবে। তিনটি অপশন পাবেন। যথা –
i) Sumbit digitally through e-kyc & e-sign paperless ( অনলাইনে e-kyc ও e-sign করে আবেদন করতে পারেন)
ii) Submit scanned Images through e-sign (নিজের মোবাইল থেকে ছবি আপলোড করতে পারবেন)
iii) Forward Application Document physically ( নিজের আবেদনপত্র গিয়ে জমা করে আসতে হবে)

সবথেকে ভালো হবে দ্বিতীয় অপশন Submit scanned Images through e-sign -এটি সিলেক্ট করলে কারণ তাহলে আবেদন পদ্ধতি অনেকটা সহজ হয়ে যাবে।

ঘরে বসে আবেদন করুন নতুন রেশন কার্ডের জন্য, জেনে নিন পদ্ধতি

৬. এরপরে Whether Physical Pan Card is required -এর জায়গায় Yes -এ ক্লিক করবেন এবং নীচে আধার কার্ডের শেষ চারটি নম্বর লিখে আধার কার্ডে যেভাবে আপনার নাম লেখা আছে সেটি ভালোভাবে লিখবেন।

৭. তারপরে আপনার বাবা ও মায়ের নাম এবং প্যান কার্ডে ইনাদের মধ্যে যার নাম রাখতে চান সেই অপশনটি সিলেক্ট করে Next -এ ক্লিক করবেন।

৮. এবার Source of Income (রোজগারের উৎস) ও নিজের বাড়ি ও অফিসের ঠিকানা (যদি থাকে) ফিল আপ করতে হবে। নীচে Representative Assessee -এ যদি ১৮ বছরের কম কারোর প্যান কার্ড বানাতে চাইছেন তাহলে Yes -এ ক্লিক করবেন এবং ১৮ বছরের বেশী বয়সী কোনো ব্যক্তির প্যান কার্ডের জন্য আবেদন করলে No তে ক্লিক করে Next-এ যাবেন।

৯. এরপরে Save Draft -এ ক্লিক করে এখনও পর্যন্ত যত কিছু ফিল আপ করলেন তা সেভ করে নিতে পারেন। তারপরে নীচে নিজের শহরের ইনকাম ট্যাক্স অফিস সিলেক্ট করে Next অপশনে যাবেন।

১০. এবার আপনাকে ডকুমেন্ট আপলোড করতে হবে। তিন ধরনের নথি আপলোড করতে হবে। যথা – ক) Proof of Identity (পরিচয়ের প্রমান), খ) Proof of Address (বাসস্থানের প্রমান), গ) Proof of Date of Birth (জন্মতারিখের প্রমান)। তিনটি ক্ষেত্রেই আপনি আধার কার্ড সিলেক্ট করতে পারেন। এছাড়া উপরোক্ত অপশনগুলোতে ক্লিক করে আপনি আধার ছাড়া অন্য কোনো ডকুমেন্টও আপলোড করতে পারেন। আপনি যে ডকুমেন্ট সিলেক্ট করবেন সেগুলো নীচে আপলোড করে দিতে হবে এবং এর সাথে নিজের পাসপোর্ট সাইজ ছবি ও স্বাক্ষরও অনলাইনে আপলোড করতে হবে।

১১. এরপরে সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে Submit অপশনে ক্লিক করবেন এবং তারপরে Proceed অপশনে ক্লিক করে অনলাইনে ১০৬.৯০ টাকা পেমেন্ট করতে হবে। ক্রেডিট কার্ড / ডেবিট কার্ড / ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিং / UPI প্রভৃতি যে কোনো উপায়ে পেমেন্ট করতে পারেন।

১২. তারপরে Continue With e-sign -এ ক্লিক করে নিজের আধার কার্ড নম্বর লিখবেন এবং উক্ত আধার নম্বরের সাথে লিংক থাকা মোবাইল নম্বরে পাঠানো OTP -টি লিখে Verify OTP অপশনে ক্লিক করবেন।

তাহলে আপনার মোবাইল স্ক্রিনে Acknowledgement Slip -টি দেখাবে। আপনি চাইলে সেটি ডাউনলোড করে নিতে পারেন। প্যান কার্ডের জন্য অনলাইন আবেদনের ৩-৪ দিন পরে আপনার ইমেলে প্যান কার্ড হয়ে যাওয়ার confirmation ও ই-প্যান কার্ড চলে আসে। আপনি সেটিকে ডাউনলোড করে পরে প্রিন্ট করে নিতে পারেন। আবেদনের ৭-৮ দিনের মধ্যেই আপনার ঠিকানায় অরিজিনাল প্যান কার্ড পোস্ট অফিসের মাধ্যমে চলে আসবে।

আবেদন – লিংক

এই রকম আরও নানান গুরুত্বপূর্ণ খবর পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের টেলিগ্রাম আইকনে ক্লিক করে আজই জয়েন হন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে