সরকারি প্রকল্প

Swasthya Sathi Scheme: স্বাস্থ্য সাথী কার্ড নিয়ে কড়া পশ্চিমবঙ্গ সরকার! আর কোন অনিয়ম বরদাস্ত নয়

ফের সামনে এলো স্বাস্থ্য সাথী কার্ড (Swasthya Sathi Scheme) সম্পর্কিত বড় তথ্য। এবার বদলে যেতে চলেছে স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড সম্পর্কিত নিয়ম। বিলে অনিয়ম ঠেকাতেই রাজ্য সরকারের তরফে এই বড়ো পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। মানবিক মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (CM Mamata Banerjee) ২০১১ সাল থেকে ক্ষমতায় আসার পরেই নানা ধরনের প্রকল্প (Health Scheme) চালু করেছেন রাজ্যের মানুষের সুবিধার্থে (Government of West Bengal).

Swasthya Sathi Scheme Health Scheme New Update by Government.

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের জনপ্রিয়তম প্রকল্প গুলোর মধ্যে একটি হল স্বাস্থ্য সাথী (Swasthya Sathi Scheme). ২০১৬ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে এই স্কিমের কথা ঘোষণা করেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্য সরকারের এই প্রকল্পের ফলে পশ্চিমবঙ্গ বাসীর স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে বড়ো সুবিধা হয়েছে। এই স্বাস্থ্য সাথী কার্ড (Swasthya Sathi Card) দেখিয়ে অনেক মানুষ তাদের অপারেশন করিয়েছেন।

পশ্চিমবঙ্গে স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প

মূলত স্বাস্থ্য সাথীর কথা ঘোষণা করার সময়েই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, পশ্চিমবঙ্গের জনগণকে বিনামূল্যে চিকিৎসা পরিষেবা প্রদান করাই হল এই প্রকল্পের অন্যতম লক্ষ্য। একই সঙ্গে সকল বেসরকারি হাসপাতাল গুলোতে নূন্যতম স্বাস্থ্য পরিষেবা প্রদানও এই Swasthya Sathi Scheme এর একটি মুখ্য উদ্দেশ্য। তবে সাম্প্রতিক অতীতে এই স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের বিল নিয়ে বেশ কিছু অনিয়মের অভিযোগ সামনে এসেছে।

স্বাস্থ্য সাথী কার্ডে অনিয়ম!

এবার তা রুখতেই তৎপর হয়ে উঠল রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর। আর তাই স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের নিয়মে আসতে চলেছে বদল। মূলত Swasthya Sathi Scheme সর্বোচ্চ ৫ লক্ষ টাকা অবধি চিকিৎসা পরিষেবার সুযোগ পেয়ে থাকেন সকলে। এই কার্ড থাকলে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি হতে গেলে রোগীকে আগে থেকে কোনও টাকা দিতে হয় না। এই কার্ড দেখালেই হয়। পরে সরকারের সেই বিল দেওয়ার কথা।

স্বাস্থ্য সাথী স্কিম নিয়ে বড় আপডেট

তবে এই প্রকল্পের সুবিধা হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা করালেই পাওয়া যায়। বহির্বিভাগে চিকিৎসা করালে কিন্তু পাওয়া যায় না। তবে, এবার থেকে Swasthya Sathi Scheme নতুন নিয়ম অনুযায়ী কোনো রোগী যদি ১০ দিনের বেশি হাসপাতালে ভর্তি থাকেন তাহলে সেই রোগীর মেডিক্যাল অডিট হবে। এরপরেই সরকার বিলের টাকা পাশ করবে। একই সঙ্গে যে সার্জারির জন্য ওই রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন।

E Shram Card (ই শ্রম কার্ড)

রাজ্যবাসীর জন্য এমন সিদ্ধান্ত

শুধুমাত্র সেটার টাকাই সরকারের তরফ থেকে দেওয়া হবে। ভর্তি হওয়ার পর রোগীর যদি অন্য কোনও সমস্যা ধরা পড়ে তাহলে তার খরচ কিন্তু রাজ্য সরকার দেবে না। সূত্র মারফৎ জানা যাচ্ছে, বিগত কয়েক দিন ধরেই সরকারের কাছে Swasthya Sathi Scheme অতিরিক্ত টাকা আদায় করার অভিযোগ আসছিল। কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতালের তরফ থেকে বেশি টাকা আদায় করা হচ্ছিল বলেও অভিযোগ ওঠে।

জুলাই মাসে লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের টাকা কবে ঢুকবে? মা বোনেরা এইভাবে দেখে নিন

এবার সেটা রুখতেই Swasthya Sathi Scheme নিয়ে কড়া পদক্ষেপ নিল রাজ্য সরকার। জারি করা হল নয়া নির্দেশিকা। যদিও অডিট করে আদৌ এই অনিয়ম ঠেকানো যায় কিনা সেটিই এখন দেখার বিষয়। কিন্তু এর ফলে রাজ্যের সকল গরীব ও মধ্যবিত্ত মানুষদের খুবই সুবিধা হতে চলেছে সেইটা বলাই বাহুল্য। এই সম্পর্কে আপনাদের মত নিচে কমেন্ট করে জানাবেন।
Written by Sampriti Bose.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button