Farmers-apply-for-this-project-and-12000-rupees-will-come-to-your-account-per-year

ভারত তথা পশ্চিমবঙ্গের সাধারণ মানুষের প্রধান জীবিকা কৃষিকাজ হলেও অনেক ক্ষেত্রেই বৃদ্ধ বয়সে কৃষকদের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে হয়। বৃদ্ধ কৃষকদের যাতে আর্থিকভাবে সহায়তা প্রদান করা যায় তার জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফে কৃষক বার্ধক্য ভাতা নামক একটি প্রকল্প শুরু করা হয়েছে (Krishak Old Age Pension)। এই প্রকল্পের মাধ্যমে রাজ্য সরকারের তরফের বৃদ্ধ কৃষকদের প্রতি মাসে ১০০০ টাকা অনুদান স্বরূপ প্রদান করা হয়ে থাকে (Government Scheme)। পশ্চিমবঙ্গে বসবাসকারী মহিলা এবং পুরুষ উভয় কৃষকই এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে পারবেন। আজ আমরা আলোচনা করবো, রাজ্য সরকারের এই প্রকল্পের জন্য কারা আবেদন করতে পারবেন, কিভাবে আবেদন করবেন ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলি।

রেশন কার্ডে নাম-ঠিকানায় ভুল রয়েছে? বাড়িতে বসেই সহজে অনলাইনে তা সংশোধন করুন

চলুন তবে দেখে নেওয়া যাক, কারা আবেদন করতে পারবেন এই প্রকল্পের অনুদানের জন্য:-
১. এই প্রকল্পে আবেদনের ক্ষেত্রে আবেদনকারীর বয়স কমপক্ষে ৬০ বছর হতে হবে। এছাড়া তপশিলি জাতি এবং উপজাতির কৃষকরা ৫৫ বছর বয়সী হলেই এই প্রকল্পের অনুদানের জন্য আবেদন করতে পারবেন।
২. কৃষকদের অন্ততপক্ষে ১০ বছর ধরে পশ্চিমবঙ্গের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।
৩. কৃষকদের অন্ততপক্ষে ১ একর জমি থাকতে হবে। বর্গাকার ক্ষেত্রে অন্ততপক্ষে ২ একর জমি থাকতে হবে।
৪. যে সকল কৃষকদের জীবনধারণের অন্য কোন উপায় নেই অথবা বৃদ্ধ বয়সে কেউ দেখভাল করার মত নেই তারাই একমাত্র এই প্রকল্পে আবেদন করতে পারবেন।
৫. রাজ্য সরকার অথবা কেন্দ্র সরকারের অধীনস্থ অন্য যেকোনো প্রকল্পের অনুদান পেয়ে থাকলে কৃষকরা এই প্রকল্পে আবেদন করতে পারবেন না।

• আবেদন পদ্ধতি:-
এই প্রকল্পের জন্য আবেদন পদ্ধতি সম্পূর্ণভাবে অফলাইন নিয়ে সম্পন্ন করতে হবে।
১. প্রথমেই আপনাকে আপনার স্থানীয় ব্লক কৃষি অধিকর্তা/ মহাকুমার সহ কৃষি অধিকর্তা অথবা আপনার জেলার কৃষি অধিকর্তার অফিস থেকে এই প্রকল্পে আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় ফর্মটি সংগ্রহ করতে হবে। উপরোক্ত অফিস গুলি থেকে আপনি এই ফর্মটি সম্পূর্ণ নিকর্চায় পেয়ে যাবেন। অথবা https://matirkatha.net/ ওয়েবসাইট থেকে ফর্মটি ডাউনলোড করতে পারবেন।
২. এরপর ফর্মটি সঠিকভাবে পূরণ করতে হবে।
৩. এরপর প্রয়োজনীয় নথিগুলো সঠিকভাবে যুক্ত করতে হবে।
৪. সমস্ত তথ্য সঠিকভাবে পূরণ করে এবং সমস্ত নথি সঠিকভাবে যুক্ত করে ফর্মটি স্থানীয় পঞ্চায়েত অফিস কিংবা বিডিও অফিস (B.D.O Office) অথবা সাব-ডিস্ট্রিক্ট (sub-district) অফিসের মধ্যে যেকোনো একটিতে জমা দিলেই আপনি প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

ইউটিউবের মাধ্যমে কিভাবে ইনকাম করা সম্ভব? জেনে নিন খুঁটিনাটি

• প্রয়োজনীয় নথি:-
১. আবেদনকারীর বয়সের প্রমাণপত্র
২. আবেদনকারী যদি বিশেষভাবে সক্ষম হয়ে থাকেন তবে প্রতিবন্ধী সার্টিফিকেট
৩. ভোটার কার্ডের প্রতিলিপি
৪. আধার কার্ডের প্রতিলিপি
৫. নিজস্ব জমির দলিল অথবা পর্চার প্রতিলিপি
৬. জমি নিজে চাষ করেন কিনা, কত বছর ধরে পশ্চিমবঙ্গে বাস করছেন ইত্যাদি সংক্রান্ত প্রমাণপত্র
৭. বর্তমানে আবেদনকারীর আয়ের শংসাপত্র
৮. তপশিলি জাতি এবং উপজাতিভুক্ত হলে তার শংসাপত্র
৯. বর্তমানে রাজ্য সরকার অথবা কেন্দ্র সরকারের অধীনস্থ কোনো প্রকল্পে অনুদান পান কিনা তার প্রমাণপত্র

• রেফারেন্সের প্রয়োজনীয় নথি কি কি:-
১. স্থানীয় গ্রামপ্রধানের সিলমোহর সহ পূর্ণ স্বাক্ষর।
২. BL&LRO রেভিনিউ অফিসার/ রেভিনিউ ইন্সপেক্টর এর স্বাক্ষরসহ সীলমোহর।
৩. ব্লক উন্নয়ন আধিকারিক সিলমোহর সহ স্বাক্ষর।
৪. পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির সিলমোহর সহ স্বাক্ষর।

এইরকম আরও নানান গুরুত্বপূর্ণ আপডেট পেতে আমাদের পেজটি ফলো করুন এবং নীচের ডানদিকের আইকনে ক্লিক করে আজই যুক্ত হোন আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে